শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ০৮:১৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
শিরোনাম
কু্ষ্টিয়া প্রেসক্লাব কেপিসি’র সাধারন সম্পাদক সোহেল রানা’র ছোট বোনের দাফন সম্পন্ন কুষ্টিয়া ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকুর রহমান অনিককে হত্যার উদ্দেশ্যে গুলি চালায় খলিসাকুন্ডির মসজিদে মসজিদে পবিত্র ঈদুল আজহার জামাত খলিসাকুন্ডি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সাবেক (ভারপ্রাপ্ত) প্রধান শিক্ষক রমজান আলী আর নেই দৌলতপুরে সাবেক এম.পি আফাজ উদ্দিনের দাফন সম্পন্ন সাবেক সংসদ সদস্য আফাজ উদ্দিন আহমদের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক দৌলতপুরে পুলিশের অভিযানে ২ কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক বর্ষিয়ান আওয়ামীলীগ নেতা আফাজ উদ্দিন আহমেদের মৃত্যুতে হানিফ এমপি’র শোক আফাজ উদ্দিন আহমেদের মৃত্যুতে কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের শোক কুষ্টিয়ায় মুজিব শতবর্ষে বৃক্ষ নিধনের প্রতিবাদে বিশাল মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান

কুষ্টিয়ার মিরপুরের “নন্দিতা” সিনেমা হল এখন শুধুই স্মৃতি!

দ্য কুষ্টিয়া রিপোর্ট প্রতিবেদক: / ২০১ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৬ এপ্রিল, ২০২১, ১০:০৯ am
মিরপুরের এক সময়কার একমাত্র বিনোদন কেন্দ্র নন্দিতা সিনেমা হলের এই ছবিটি এখন কেবলী ছবি

কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার প্রানকেন্দ্রের একমাত্র বিনোদন কেন্দ্র “নন্দিতা” সিনেমা হলটি ভেঙ্গে ফেলার মাধ্যম এটি এখন চলে গেছে স্মৃতির পাতায়। এখন ভেঙ্গে ফেলা হলটির স্থানে প­ট করে জমি বিক্রি করা হচ্ছে। বর্তমান প্রজন্ম বিশেষ করে দুই আড়াই বছর আগে এ উপজেলার যে শিশুটি ভুমিষ্ট হয়েছে সে শিশুটি বড় হবার পর এবং দুর-দুরান্তের মানুষরা এই স্থানটিকে চিনবেন শুধুই হয়তো আবাসিক এলাকা হিসাবে।

 

 

উপজেলার প্রান কেন্দ্রে ১৯৮২ সালে ঝিনাইদহ শিল্প ব্যাংক থেকে ১৩ লক্ষ ২০ হাজার টাকা ঋণ সুবিধা নিয়ে ৪৩ শতক জমির উপর কুষ্টিয়া থানা পাড়ার কর্ণেল সাইদুর রহমান “নন্দিতা সিনেমা” হল প্রতিষ্ঠা করেন। সিনেমা হলটি চালুর পর অত্র অঞ্চলের বিনোদন প্রিয় দর্শকদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া পড়ে। সিনেমা হলটি চালুর পর ব্যবসায়িক সাফল্য যখন তুঙ্গে তখন হলটির মূল মালিক কর্ণেল সাইদুর রহমান আকস্মিক মৃত্যু বরন করেন। ছন্দপতন ঘটে হলটির ব্যবসায়িক সাফল্যে। সাথে বাড়তে থাকে ঋনের সুদ। এরপর ঈশ্বরদীর মধু খন্দকার বিনোদন কেন্দ্রটি চালুর উদ্যোগ নেন। ৬ মাসের মাথায় হলটি বন্ধ হয়ে যায়। এবার ঢাকার রুহুল আমিন ভুঁইয়া লীজ ভিত্তিতে হলটি চালু করেন। তাকেও ৮ মাসের মাথায় হলটি বন্ধ করতে হয়। এরপর নারায়নগঞ্জের এম, এ মান্নান উদ্দ্যোগ নিয়ে হলটি ৩ বছর চালু রাখেন।

 

 

মেহেরপুরের পটল ১ বছর এবং রাজবাড়ীর শরিফুল ইমাম মূল মালিকের স্ত্রীর সাথে পার্টনার শীপে ২ বছর চালু রাখলেও নিয়মিত করতে পারেননি। সর্বশেষ ১৯৯৮/৯৯ সালে হলটি বন্ধ হয়ে যাবার পর আর চালু করা যায়নি। সময়মত ঋণের কিস্তি পরিশোধ না করে শিল্প ব্যাংকের ১৩ লক্ষ ২০ হাজার টাকা ঋণের সুদ এবং আসল মিলে ৭০ লক্ষ টাকায় দাঁড়ায় বলে একটি সুত্র থেকে জানা যায়।

 

শিল্প ব্যাংকের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের হলটির মূল মালিকের স্ত্রী সাঈদা আক্তার সাঈদ তত্বাবধায়ক সরকারের আমলে তেলেসমাতি কায়দায় ৭০ লক্ষ টাকার সুদ আসল অবিশ্বাস্য রকম মওকুফ করিয়ে শুধুমাত্র আসল টাকা ব্যাংকে জমা দিয়ে হলটির দখল নিয়ে তড়িঘড়ি করে ভেঙ্গে ফেলে সেখানে উচ্চমূল্যে কাঠা প্রতি জমি বিক্রি করে দিয়েছে।




আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

ব্রেকিং নিউজ
ব্রেকিং নিউজ